দেশে লুটপাট তন্ত্র প্রতিহত করে হারানো গণতন্ত্র পুন:রুদ্ধার করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা হবে: ডা. শাহাদত হোসেন

 ২০১৯-০৯-০১  ০৬:২২ পিএম
 প্রেস বিজ্ঞপ্তি

দেশে লুটপাট তন্ত্র প্রতিহত করে হারানো গণতন্ত্র পুন:রুদ্ধার করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা হবে: ডা. শাহাদত হোসেন

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদত হোসেন বলেছেন, দেশে লুটপাটতন্ত্র প্রতিহত করে হারানো গণতন্ত্র পুন:রুদ্ধার করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা হবে। নব্য ডিজিটাল বাকশালের কবলে প্রিয় স্বদেশ। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব আজ প্রশ্নের সম্মুখীন। দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে গণতন্ত্রের মূর্ত প্রতীক বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে জাতীয়তাবাদী সরকারই মুক্তি দিতে পারে। আজ ১ সেপ্টম্বর রবিবার বিএনপির ৪১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ঐতিহাসিক বিপ্লব উদ্যানে সকাল ১১ টায় চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের উদ্যোগে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসেশ বক্কর, বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক এস এম সাইফুল আলম, চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দিপ্তীর সভাপতিতত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ শাহেদের পরিচালনায় নগর বিএনপি ও নগর যুবদল নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান দেশের ক্রান্তিকালে ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। জাতীয়তাবাদী চেতনায় উজ্জ্বীবিত হয়ে দেশ প্রেমিক জনসাধারণকে গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে অন্তর্ভূক্ত করেন।

স্বাধীনতার এত বছর পরেও দেশে গণতন্ত্র কারাগারে বন্দি। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মিথ্যা মামলায় জেলা হাজতে। প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর এই দিনে শহীদ জিয়ার আদশ্যে উজ্জ্বীবিত হয়ে যুব সমাজকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আগামীর আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য প্রস্তুতি নেয়ার আহবান জানান নেতৃবৃন্দ।  এ সময় অন্যান্যেও মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আজমল হুদা রিংকু, নূও আহমদ গুড্ডু, এস এম শাহ আরম রব, ফজলুল হক সুমন, মো. জাহাঙ্গির আলম, আবদুল করিম, আবদুল গফুর বাবুল, সাহাব উদ্দিন হাসান বাবু, মিয়া মোহাম্মদ হারুন, জসিমুল ইসলাম কিশোর, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মোশাররফ হোসাইন, যুগ্ম সম্পাদক হাবিবুর

রহমান মাসুম, সৈয়দ মনজুর হোসেন, আমান উল্লাহ আমান, মো. হুমায়ুন কবীর, ইকবাল পারভেজ, এরশাদ হোসেন, তাজুল ইসলাম তাজু, আবদুল হামিদ পিন্টু, দীপংকর ভট্টচার্য্য, সেলিম উদ্দিন রাসেল, শাহীন পাটওয়ারী, রাজন খান, সহসাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান টিপু, সাজ্জাদ হোসন সাজু, ওসমান গণি, শাহজালাল পলাশ, মুজিবুর রহমান রাসেল, আহাদ আলি সায়েম, জমির উদ্দিন আহমদ মানিক, জাফর আহমেদ খোকন, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য জিল্লুর রহমান জুয়েল, মো. সাগীর, আজিজুর রহমান মাসুম, জসিম উদ্দিন সাগর, মোহাম্মদ আলা উদ্দিন, মোহাম্মদ আলী, মহিউদ্দিন মুকুল, এনামুল হক এনাম, এস এম বখতেয়ার উদ্দিন,নুরুল আমিন, সহসম্পাদকবৃন্দ আতিকুর রহমান আতিক, কোরবান আলী, মনোয়ার হোসেন মানিক, কমল জ্যোতি বড়–য়া, জহিরুল ইসলাম জহির, হামিদুল হক, হাফেজ মো. কামাল উদ্দিন, মেজবাহ উদ্দিন মিন্টু, মো. সালাহ উদ্দিন, ইদ্রিস আলম, জাহাঙ্গির আলম বাবু, সিরাজ সিকদার, আবদুল আউয়াল টিপু, ইব্রাহিম খান, মো. শাহজাহান, গুলজার হোসেন মিন্টু, ইয়াসিন আজাদ, শাবাব ইয়াজদানি, সাইদুল হক সিকদার, আরশাদ মোমেন আশু, জাহেরী মাসুদ, সাখাওয়াত কবীর সুমন, বায়েজিদ থানা যুবদলের আহবায়ক অরুপ বড়–য়া, যুগ্ম আহবায়ক মনজুর আলম, পাঁচলাইশ থানা যুবদলের আহবায়ক মোহাম্মদ আলী সাকি, চান্দগাঁও থানা যুবদলের আহবায়ক গুলজার হোসেন, যুগ্ম আহবায়ক মোর্শেদ কামাল, খুলশী থানা যুবদলের আহবায়ক হেলাল হোসেন, যুগ্ম আহবায়ক আশিক মল্লিক আরসি, জালালাবাদ ওয়ার্ড সভাপতি এস এম

আলী, ৪ নং ওয়ার্ড সভাপতি আবু বক্কও বাবু, ১৩ নং ওয়ার্ড সভাপতি বাদশা আলমগীর, ১২ নং ওয়াঢ সভাপতি সাইফুল আলম, ১৪ নং ওয়ার্ড জহিরুল ইসলাম, ৪২ নং ওয়ার্ড সভাপতি এস এম শাহবাজ, ৪৩ নং ওয়ার্ড ফয়সল হোসেন মানিক, ৯ নং ওয়ার্ড সভাপতি মো. ইউনুস প্রমুখ।