প্রয়াত প্রধান শিক্ষক কাজী আলমগীর স্মরনে শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। স্মৃতি ফাউন্ডেশন গঠনের ঘোষনা।

 ২০১৯-০৯-১৬  ০৩:৪৮ পিএম
 প্রেস বিজ্ঞপ্তি

প্রয়াত প্রধান শিক্ষক কাজী আলমগীর স্মরনে শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। স্মৃতি ফাউন্ডেশন গঠনের ঘোষনা।

আজ ১৩ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকাল ৩টায় চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ মিলনায়তনে মুছাপুর বদিউজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রয়াত প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব কাজী মোহাম্মদ আলমগীর স্মরনে এক শোকসভা বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের আহবায়ক রাজিবুল আহসান সুমন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের সদস্য সচিব ফোরকান উদ্দিন রিজভীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শোকসভায় বক্তব্য রাখেন- সন্দ্বীপ এসোসিয়েশন চট্টগ্রাম এর সাবেক সভাপতি এ কে এম বেলায়েত হোসেন ও জনাব সামসুল কিবরীয়া, চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক পরিচালক জনাব সারোয়ার হাসান জামিল সামিম, সন্দ্বীপ এডুকেশন সোসাইটি চট্টগ্রাম এর সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার হেলাল উদ্দিন, রুপালী ক্রেডিট কো-অপারেটিভ এর চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট ব্যাংকার জনাব আবুল কাশেম, প্রাক্তন ছাত্র ও বিশিষ্ট আইনজীবি এডভোকেট মোহাম্মদ ইমলাক, সন্দ্বীপ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফোরকান উদ্দীন আহমেদ, সাবেক চেয়ারম্যান আজিজ উল্যাহ, প্রয়াত প্রধান শিক্ষক কাজি আলমগীরের সহকর্মী ও গোসাইলডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক জনাব মোহাম্মদ আলাউদ্দীন, ছোট ভাই কাজি ইকবাল আজম, বড় মেয়ে কাজি তামান্না আফরোজ, দ্বিতীয় জামাতা অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম, প্রাক্তন ছাত্র জনতা ব্যাংকের ডিজিএম জনাব জাকারিয়া, প্রাক্তন ছাত্র এডভোকেট সেকান্দর বাদশা, সন্দ্বীপ এডুকেশান সোসাইটির সাবেক সাধারন সম্পাদক জনাব সামসুল আলম, সন্দ্বীপ এসোসিয়েশানের সাধারন সম্পাদক জনাব আবু ইউসুফ রিপন,অধ্যাপক খালেদ মাহমুদ, অধ্যাপক সামসুল কবির সামিম ও প্রাক্তন ছাত্র মাষ্টার আফছার উদ্দীন রাজু প্রমুখ ।

সভায় বক্তরা বলেন- প্রয়াত প্রধান শিক্ষক আলমগীর ছিলেন সৎ, নির্লোভ ও আদর্শবান শিক্ষক। তিনি ছিলেন নীতিতে অটল, প্রশাসনে দক্ষ, প্রাতিষ্ঠানিক স্বার্থে কঠোর, বচনে স্বল্পভাষী, উচ্চ ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন এক মহান শিক্ষক। তিনি শিক্ষকতা পেশাকে নিয়েছিলেন ব্রত হিসাবে, সাধনা হিসাবে। ৪০ বছরের শিক্ষকতা জীবনে তিনি কোন দিন প্রাইভেট টিউশাননি করেননি। কোনদিন বিলম্বে বিদ্যালয়ে আসেননি।  শিক্ষকতা পেশার মহত কর্মের মাধ্যমে তিনি ব্যক্তি ছাড়িয়ে একটি প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত হয়েছেন।
শোক সভার সমাপনী বক্তব্যে সভাপতি রাজিবুল আহসান সুমন   আলোকিত মানুষ গড়ার কারিগর প্রয়াত কাজি মোহাম্মদ আলমগীর স্যারকে স্মরনীয় করে রাখা ও তাঁর আদর্শকে ধারন করার লক্ষ্যে ‘ কাজি মুহাম্মদ আলমগীর ফাউন্ডেশন’ গঠন এবং মুছাপুর বদিউজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র পরিষদ থেকে প্রাথমিকভাবে এক লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করার ঘোষনা প্রদান করেন। উক্ত ফাউন্ডেশন পরিচালনায় প্রয়াত স্যারের কন্যা- জামাতা, প্রাক্তন ছাত্র ও শুভাকাংখিদের সমন্ময়ে পরিচালনা করা হবে বলে জানান। 

শোক সভার সভাপতি আরো জানান- স্যারের স্মৃতিকে অম্লান রাখতে আরেকটি সভায় মুছাপুর বদিউজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি ভবনের নাম ‘ কাজি মুহাম্মদ আলমগীর ভবন ‘ নামকরনের দাবি জানালে উপস্থিত সংসদ সদস্য বদিউজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয় ও কাজি আফাজ উদ্দিন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি ভবন কাজি মুহাম্মদ আলমগীরের নামে নামকরনের ঘোষনা প্রদান করেন।
শোকসভা শেষে প্রয়াত কাজি মোহাম্মদ আলমগীর সাহেরের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।শোকসভায় স্যারের জীবনী গ্রন্থ ‘ একজন আলোকিত মানুষ - কাজি মুহাম্মদ আলমগীর’ প্রকাশ করা হয়।

উল্লেখ্য- আলোকিত মানুষ গড়ার নিপুন কারিগর, বরেণ্য প্রধান শিক্ষক কাজী আলমগীর ১৯৪৩ সালের ৪ জানুয়ারী সন্দ্বীপের সারিকাইত ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী বনেদী ‘কাজী’ পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। বাবা কাজী আব্দুল আহাদ ও মাতা মোস্তফা খাতুনের ৭ পুত্র ও ৭ কন্যার মধ্যে তিনি দ্বিতীয় ছিলেন। তার বাবা ৪০ বছর সারিকাইত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। দাদা কাজি আফাজ উদ্দিন ছিলেন প্রখ্যাত মুক্তার আর নানা কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসার গোল্ড মেডেলিষ্ট। দাদার নামে প্রতিষ্ঠিত কাজি আফাজ উদ্দিন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় আর নানার নামে বাউরিয়া জি কে একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয় সন্দ্বীপে জ্ঞানের আলো ছড়াচ্ছে বহুকাল ধরে। প্রয়াত প্রধান শিক্ষক কাজি আলমগীর ছয় কন্যা সন্তানের জনক। তিনি গত ১৭ আগষ্ট ২০১৯ দীর্ঘ মাসাধিক কাল অসুস্থ থেকে ঢাকায় বঙ্গঁবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকাকালীন মৃত্যুবরন করেন।