প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপত্য বিভাগের ‘হেরিটেজ ক্রিয়েশন এডেপটিভ রিইউজ অব হেরিটেজ বিল্ডিংস’ শীর্ষক প্রদর্শনীতে জাপানের কিয়ুশু বিশ্ববিদ্যালয় ও সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়
জাপানে প্রাচীন স্থাপনাকে সংস্কার সাধনের মাধ্যমে পুনর্ব্যবহার করা হয়
আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সমাজবিজ্ঞানী ও শিক্ষায় একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, ইতিহাস ও ঐতিহ্য হলো দেশ ও জাতির পরিচয়। প্রাচীন স্থাপনা এই ইতিহাস ও ঐতিহ্যের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। চট্টগ্রামে বহু প্রাচীন স্থাপনা রয়েছে। চট্টগ্রামের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে সমৃদ্ধ রাখতে এগুলোকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করা ও পুনর্ব্যবহারের উপযোগী করা প্রয়োজন।
গত ০৬ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার, নগরীর জিইসি মোড়স্থ’ প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের উদ্যোগে ‘হেরিটেজ ক্রিয়েশন: এডেপটিভ রিইউজ অব হেরিটেজ বিল্ডিংস’ শীর্ষক প্রদর্শনীর উদ্বোধকের বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, আজকের প্রদর্শনীতে চট্টগ্রামের তিনটি প্রাচীন স্থাপনা দেয়ালিকা, ছবি ও মডেল আকারে প্রদর্শিত হলো। যেমনÑপিকে সেন সাততলা, সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সেন্টার এবং চন্দনপুরা নাচঘর। মূল কাঠামো ঠিক রেখে, সংস্কার সাধনের মাধ্যমে এগুলোকে সংরক্ষণ ও পুনর্ব্যবহার করা যেতে পারে।
উদ্বোধনের পর প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন, জাপানের কিয়ুশু বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন প্রফেসর মাসাকাজু এবং কিয়ুশু বিশ্ববিদ্যালয় ও সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ।
পরে আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাপানের কিয়ুশু বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন প্রফেসর মাসাকাজু তানি। উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে মাসাকাজু তানি বলেন, মূল কাঠামো অবিকল রেখে ও সংস্কার সাধন করে প্রাচীন স্থাপনাকে আমরা জাপানে পুনর্ব্যবহারের কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশেও আমরা এ-ধরনের কাজ করতে কিংবা এ-ধরনের কাজে সহযোগিতা করতে আগ্রহী।
প্রফেসর মাসাকাজু তানি তাঁর বক্তব্যে প্রদর্শনীর ব্যাপারে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। প্রদর্শনীতে ও আলোচনা অনুষ্ঠানে জাপানের কিয়ুশু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অংশগ্রহণকারী অন্যান্য শিক্ষকরা হলেন তম ইন্যুই, ইয়াসুকু কিশি, ইয়ুকি কাতো, মিকি আচো, মাসাআকি ইয়ামোতো, আবিয়ার রহমান, আটসুকো ইয়ানো, হুদা মোহাম্মদ ফয়সাল। সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অংশগ্রহণকারী শিক্ষকরা হলেন জুনকো তামুরা, ইমরান বিন তাজুদ্দিন, চেং জিয়াত হুই প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে স্থাপত্য বিভাগের চেয়ারম্যান সোহেল এম শাকুর উপস্থিত ছিলেন।