আজকের বিশ্ব হলো আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সের বিশ্ব, বললেন উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন
আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সমাজবিজ্ঞানী ও শিক্ষায় একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, আজকের বিশ্ব হলো আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সের বিশ্ব। এই ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করে এখন কতোকিছু হচ্ছে। যেমন, রোবট দ্বারা অপারেশন হচ্ছে, চালকবিহীন ট্রেন, গাড়ি প্রভৃতি চলছে।
গতকাল ০৩ জানুয়ারি ২০১৮, বুধবার, বেলা ১ টায় নগরীর প্রবর্তক মোড়স্থ প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় ভবনে উপাচার্য মহোদয়ের কার্যালয়ে কুমিল্লা সেনানিবাসস্থ বাংলাদেশ আর্মি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি কর্র্তৃক ‘ইইই ডে-২০১৮’ উপলক্ষে আয়োজিত লাইন ফলোয়ার রোবট (এলএফআর) দৌড় প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের পিইউসি রোবোটিক্স ক্লাবের সদস্যদের নিয়ে এই বিভাগের শিক্ষকরা উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হলে তিনি একথা বলেন। তিনি রোবট সম্পর্কে বলেন, রোবট এমন অনেক কাজ করতে পারবে, যেগুলো মানুষের পক্ষে করা খুবই কঠিন ও কষ্টসাধ্য। খনিতে কয়লা উত্তোলনের কাজে কতো মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটেছে, কতো মানুষ মারা গেছে, তা বর্ণনাতীত। এমন ঝুঁকিপূর্ণ কাজ মানুষের বদলে রোবট দ্বারা অনায়াসে সম্পন্ন করা যাবে। কোথাও অগ্নিকাÐ ঘটলে ঘটনাস্থলে উদ্ধার-কাজে রোবট ব্যবহার করে ক্ষয়-ক্ষতি হ্রাস করা যাবে। উপাচার্য সতর্কবাণী উচ্চারণ করেন, আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সকে সঠিকভাবে ব্যবহার ও নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে।
উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হওয়া পিইউসি রোবোটিক্স ক্লাবের সদস্যদের মধ্যে ছিলেন সুব্রত দাস, রনি চৌধুরী ও মাহফুজুর রহমান এবং দলের মেন্টর তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের প্রভাষক সাইফুদ্দীন মুন্না। উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন লাইন ফলোয়ার রোবট (এলএফআর) দৌড় প্রতিযোগিতায় প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের পিইউসি রোবোটিক্স ক্লাবের সদস্যরা চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় এবং রোবট ফুটবল প্রতিযোগিতায় কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত উপনীত হওয়ায় তাদের অভিনন্দন জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইফতেখার মনির।
এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন রেজিস্ট্রার ইঞ্জিনিয়ার মো. আবু তাহের, ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো. খুরশিদুর রহমান, উপ-পরিচালক (হিসাব) হাছানুল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।